শনিবার, ২১ মে ২০২২, ০৫:২৯ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম:
সাউথ এশিয়া গোল্ডেন পিস এ্যাওয়ার্ড-২০২১ পেলেন শাম্মী তুলতুল লক্ষ্মীপুর সরকারি কলেজে শেখ রাসেল দেয়ালিকা উদ্বোধন লক্ষ্মীপুরে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কম্পিউটার ও ক্রীড়া সামগ্রী বিতরণ লক্ষ্মীপুর পৌরসভার সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থী আব্দুল মতলব’র ব্যাপক গণসংযোগ রায়পুরে বেদে ও অনগ্রসর জনগোষ্ঠীর শিক্ষার্থীদের মাঝে ১৫ লাখ টাকার চেক বিতরণ রায়পুরে নবনির্মিত শহীদ মিনার উদ্বোধন করলেন নুরউদ্দিন চৌধুরী নয়ন এমপি রায়পুর উপজেলা ডিজিটাল সেন্টার উদ্বোধন করেন এড. নয়ন এমপি রায়পুরে করোনা আক্রান্তদের মাঝে অক্সিজেন সিলিন্ডার বিতরণ উদ্বোধন শোক দিবসে লক্ষ্মীপুরে আওয়ামী লীগের আলোচনা সভা ও দোয়া লক্ষ্মীপুরে বিভিন্ন ইউনিয়নে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি উপহার দিলেন নুরউদ্দিন চৌধুরী নয়ন এমপি

অতিরিক্ত মোবাইল ব্যবহারে শিং গজাচ্ছে মাথার পিছনে

অনলাইন সম্পাদনা / ৩২৫ পড়া হয়েছে:
প্রকাশের সময়: শনিবার, ২১ মে ২০২২, ০৫:২৯ পূর্বাহ্ন

দিনে দিনে মোবাইল হয়ে যাচ্ছে মানুষের দৈনন্দিন জীবনের এক বড় অংশ। চার পাশে তাকালেই এই অভ্যাস আমাদের প্রায় সব সময়ই চোখে পড়ে। আমরাও ব্যতিক্রম নই। চিকিৎসকরা এই অভ্যাস নিয়ে বহু বার সতর্ক করলেও টনক নড়েনি। তবে এ বার বায়োমেকানিক্সের এক নতুন গবেষণা আবারও শঙ্কিত করছে সকল চিকিৎসা মহলকে।

মানবদেহের কঙ্কালই বদলে দিচ্ছে এই যন্ত্রটি। অস্ট্রেলিয়ার কুইন্সল্যান্ডের ইউনিভার্সিটি অব সানশাইন কোস্টের(ইইউএসসি) গবেষকরা এ বার দাবি করলেন এরকমটাই। তাঁদের মতে, ঘাড় ঝুঁকিয়ে সারা ক্ষণ মোবাইল স্ক্রিনের উপর চোখ রাখায় ‘শিং’ গজানোর উপক্রম তৈরি হচ্ছে মাথার পিছনের অংশে।

বিজ্ঞানীদের দাবি, অতিরিক্ত মোবাইলের ব্যবহারে ঘাড় ও মাথা সংলগ্ন অঞ্চলের হাড় উঁচু হয়ে পাখির বেঁকানো ঠোঁট, হুক বা শিংয়ের মতো উঁচু হয়ে যাচ্ছে। তাঁদের মতে, মাথা ঝুঁকিয়ে মোবাইল স্ক্রিনে নজর রাখতে রাখতে কাঁধের দিক থেকে ওজন সরাসরি মেরুদণ্ডের উপর না পড়ে চলে আসছে ঘাড় ও মাথার পিছনের পেশীতে। ফলে ঘাড় ও মাথার সংযোগস্থলকে বেশি চাপ বহন করতে হচ্ছে ক্রমাগত। সেখানে থাকা টেন্ডন ও লিগামেন্টের উপর কুপ্রভাব ফেলছে সেই চাপ। দিনের পর দিন সেই চাপ পেতে পেতে শরীর চাপের সঙ্গে খাপ খাওয়াতে গিয়ে সেখানের চামড়া শক্ত করে ফেলে তৈরি ফেলছে এই গ্রোথ।

‘নেচার’পত্রিকার একটি প্রতিবেদনে গবেষকরা জানিয়েছেন, “তরুণ প্রজন্মের ব্যবহারিক জীবনের উপর প্রযুক্তির এই প্রভাব ভবিষ্যত্‌কে যে পথে ঠেলে দিচ্ছে, তা বেশ শঙ্কার।” এই বিষয় নিয়ে ‘ওয়াশিংটন পোস্ট’-কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এই বিষয়ের প্রধান গবেষক ডেভিড শাহার জানান, “হঠাৎ করে এই পরিবর্তন আসে না। বছরের পর বছর একই ভাবে মোবাইল ঘাঁটতে ঘাঁটতে এই সমস্যা তৈরি হয় শরীরে। মূলত ছোটবেলা থেকেই অতিরিক্ত মোবাইল ঘাঁটার ‘অসুখ’ থেকেই এই রোগের জন্ম। সারা ক্ষণ মোবাইল হাতে বুঁদ হয়ে থাকা মানুষ, বিশেষত তরুণ প্রজন্মই এর প্রধান শিকার।” অস্ট্রেলিয়ায় এই সমস্যাকে ইতিমধ্যেই ‘হেড হর্ন’, ‘ফোন বোনস’বা ‘উইয়ার্ড বাম্পস’ নামেও ডাকা হচ্ছে।

অস্থিবিশেষজ্ঞ চিন্ময় কুমার নাথও এই কথায় সহমত পোষণ করেছেন। তাঁর মতেও, “প্রযুক্তির এই বাড়াবাড়ির সঙ্গে খাপ খাওয়াতে আসলে আমাদের শরীরের ভিতর কিছু পরিবর্তন হতেই থাকে। তরুণ প্রজন্মের মধ্যে এত মাইগ্রেন, চোখের সমস্যা, মাথা ধরা, মানসিক চাপ, ডিপ্রেশন সবই কিন্তু কমবেশি এই ধরনের প্রযুক্তিগত কারণেও হয়। সারা ক্ষণ ফোনে ব্যস্ত থাকায় ঘর্ষণ জনিত কারণে কড়া পড়ে ত্বকে। পুরু হয় চামড়াও। কিন্তু এত কুপ্রভাবেও টনক নড়ছে কই?’’

তবে শুধু সমস্যাই নয় এর থেকে বাঁচার জন্য সেই পথও দেখিয়ে দিয়েছে চিকিৎসকরা। তাঁদের মতে, কাজের সূত্রে খুব মোবাইল কাজ করতে হলে ফিটনেস এক্সপার্ট ও চিকিৎসকদের পরামর্শ মতো অবসরে কিছু ব্যায়াম করুন। ফিঙ্গার এক্সারসাইজ ও ঘাড়ের কিছু ব্যায়ামে কিছুটা বিপদমুক্ত হওয়া যায়।

১। মোবাইল ব্যবহার কিছুটা কমিয়ে দিতে হবে। কাজের বাইরে অযথা মোবাইল ব্যবহার করার নেশা থেকে নিজেকে সংযত রাখতে হবে।

২। মোবাইল ব্যবহারের সময় মাথার সোজাসুজি মোবাইল রাখুন, ঘাড় যেন বেশি না ঝোঁকে।

৩। উঁচু কিছুর উপর মোবাইল স্ট্যান্ড রাখুন। এতে ফোন রেখে শুয়ে শুয়ে বা সোজা বসে সিনেমা বা দীর্ঘ ভিডিও দেখুন।

৪। প্রতি ১০ মিনিট অন্তর ফোন থেকে চোখ সরিয়ে ঘাড়ের কিছু সহজ ব্যায়াম অভ্যাস করুন। যে সব ভিডিয়ো ল্যাপটপে বা কম্পিউটারেও দেখা সম্ভব, সেগুলো সেভাবেই দেখুন।

৫। ল্যাপটপও উঁচু জায়গায় রাখুন

Print Friendly, PDF & Email