মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১, ০৫:১১ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম:
লক্ষ্মীপুরে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কম্পিউটার ও ক্রীড়া সামগ্রী বিতরণ লক্ষ্মীপুর পৌরসভার সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থী আব্দুল মতলব’র ব্যাপক গণসংযোগ রায়পুরে বেদে ও অনগ্রসর জনগোষ্ঠীর শিক্ষার্থীদের মাঝে ১৫ লাখ টাকার চেক বিতরণ রায়পুরে নবনির্মিত শহীদ মিনার উদ্বোধন করলেন নুরউদ্দিন চৌধুরী নয়ন এমপি রায়পুর উপজেলা ডিজিটাল সেন্টার উদ্বোধন করেন এড. নয়ন এমপি রায়পুরে করোনা আক্রান্তদের মাঝে অক্সিজেন সিলিন্ডার বিতরণ উদ্বোধন শোক দিবসে লক্ষ্মীপুরে আওয়ামী লীগের আলোচনা সভা ও দোয়া লক্ষ্মীপুরে বিভিন্ন ইউনিয়নে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি উপহার দিলেন নুরউদ্দিন চৌধুরী নয়ন এমপি রায়পুর হাসপাতালে করোনা রোগীদের জন্য অক্সিজেন সিলিন্ডার হস্তান্তর রায়পুরে ক্ষতিগ্রস্থ উদ্যোক্তাদের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর প্রনোদনার চেক বিতরণ

চীনের বাজারে আবারো বন্যপ্রাণী ও বাদুড়ের স্যুপ বিক্রি

অনলাইন সম্পাদনা / ৪৬৮ পড়া হয়েছে:
প্রকাশের সময়: মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১, ০৫:১১ পূর্বাহ্ন

চীনের উহান থেকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া কোরানাভাইরাসে থমকে গেছে সব। মরছে মানুষ। এ ভাইরাসে চীনে হাজার হাজার মানুষের মৃত্যুর পর এখন দেশটিতে আবার বন্যপ্রাণীসহ বাদুড়ের স্যুপ বিক্রি শুরু হয়েছে। ভয়ঙ্কর এই ভাইরাসের উৎপত্তি নিয়ে বিজ্ঞানীরা যে ধারণা করছেন, তার মধ্যে সামুদ্রিক প্রাণী, প্যাঙ্গোলিন আর বাদুড়ের নাম উঠে এসেছে। জৈব-অস্ত্রের কথাও অনেকে উড়িয়ে দিচ্ছেন না। করোনায় গোটা বিশ্ব আক্রান্ত। যদিও এখন চীনে কমেছে। দুই মাস পর দেশটির উহান শহরের লকডাউনও আংশিক তুলে নেয়া হয়েছে। ফলে নতুন করে ফের তৈরি হচ্ছে চীন। স্বাভাবিক হচ্ছে সব কিছু। সেইসঙ্গে দেশটির অনেক বাজারে ফের বিক্রি হচ্ছে বিভিন্ন ধরনের বন্যপ্রাণী।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ডেইলি মেইলের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাস ভয়াবহ পরিস্থিতি সৃষ্টি করলেও এই মুহূর্তে চীনের বাজারগুলো আগের মতোই চলছে। নেই জীবাণুমুক্ত থাকার ব্যাপারে কোনও ধরনের সচেতনতা। যে বাদুড়ে করোনাভাইরাসের উৎপত্তি হিসেবে মনে করছেন গোটা বিশ্বের বিজ্ঞানীরা, এখনও সেই বাদুড় বিক্রি চলছে। চীনের মানুষও তা কিনে খাচ্ছে। তৈরি করা হচ্ছে বাদুড়ের বিভিন্ন তরকারি, স্যুপ। চীনের বিভিন্ন বাজারে খাঁচার ভেতরে আতঙ্কিত কুকুর, বিড়াল ও খরগোশ রাখা আছে বিক্রির জন্য। সেখানকার প্রচলিত পথ্য হিসেবে বাদুড়ের পাশাপাশি বিক্রি হচ্ছে বিছেসহ নানা ধরনের বিষধর প্রাণীও। বিভিন্ন দোকানের বাইরে ঝোলানো হয়েছে পোস্টার।

কোন জিনিস খেলে কী রোগ সারবে তা ছবি দিয়ে দেখানো হচ্ছে। খরগোশ, কুকুর, বিড়াল, হাঁসসহ অন্যান্য প্রাণীর মাংস কেটে কেটে আলাদা করা হচ্ছে বাজারের ভেতরেই। আর সেসব প্রাণীর রক্তে ভেসে যাচ্ছে দোকানঘরের পাকা মেঝে।

Print Friendly, PDF & Email