রবিবার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ০১:১৬ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম:
লক্ষ্মীপুরে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কম্পিউটার ও ক্রীড়া সামগ্রী বিতরণ লক্ষ্মীপুর পৌরসভার সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থী আব্দুল মতলব’র ব্যাপক গণসংযোগ রায়পুরে বেদে ও অনগ্রসর জনগোষ্ঠীর শিক্ষার্থীদের মাঝে ১৫ লাখ টাকার চেক বিতরণ রায়পুরে নবনির্মিত শহীদ মিনার উদ্বোধন করলেন নুরউদ্দিন চৌধুরী নয়ন এমপি রায়পুর উপজেলা ডিজিটাল সেন্টার উদ্বোধন করেন এড. নয়ন এমপি রায়পুরে করোনা আক্রান্তদের মাঝে অক্সিজেন সিলিন্ডার বিতরণ উদ্বোধন শোক দিবসে লক্ষ্মীপুরে আওয়ামী লীগের আলোচনা সভা ও দোয়া লক্ষ্মীপুরে বিভিন্ন ইউনিয়নে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি উপহার দিলেন নুরউদ্দিন চৌধুরী নয়ন এমপি রায়পুর হাসপাতালে করোনা রোগীদের জন্য অক্সিজেন সিলিন্ডার হস্তান্তর রায়পুরে ক্ষতিগ্রস্থ উদ্যোক্তাদের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর প্রনোদনার চেক বিতরণ

দৈনিক লক্ষ্মীপুর আলোতে সংবাদ প্রকাশের দুর্ণীতির বিরুদ্ধে ব্যবস্থার নির্দেশ

অনলাইন সম্পাদনা / ৪০৬ পড়া হয়েছে:
প্রকাশের সময়: রবিবার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ০১:১৬ পূর্বাহ্ন

স্টাফ রিপোর্টার॥
বহুল প্রচারিত দৈনিক লক্ষ্মীপুর আলো পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পর লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার পূর্ব টুমচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মালামাল চুরির ঘটনায় মালামাল উদ্ধার ও জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়ে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস। বিদ্যালয়ের পরিত্যক্ত ভবনের মালামাল চুরি ও চুরির ঘটনায় নানা নাটকীয়তার সত্যতা পেয়েছিল শিক্ষা অফিস। তার প্রেক্ষিতে গত ১৫ মার্চ মালামাল উদ্ধার সহ আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার আদেশ জারি করে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস। একই সাথে পৃথক আরেক আদেশে বিদ্যালয়ের স্লিপ ফান্ডের টাকা আত্মসাতের অভিযোগের তদন্ত প্রতিবেদন আগামী ১০ কার্যদিবসের মধ্যে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের নিকট জমা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়।
২৩ মার্চ সোমবার উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার হাসিনা আক্তার বিষয়টি নিশ্চিত করেন। এর আগে ১৫ মার্চ জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মনছুর আলী চৌধুরী এক পত্রে এ আদেশ জারি করেন।
আদেশে বলা হয়েছে, পূর্ব টুমচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পুরাতন ভবনের মালামাল নিলামে বিক্রিত অর্থ সরকারি কোষাগারে জমা প্রদান করা হয়নি। মালামালসমূহ চুরি করে বিক্রয় করা সংক্রান্ত ঘটনায় উক্ত বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক মোঃ কামরুদ্দিনকে বিভাগীয় মামলা হতে অব্যাহতি প্রদান করা পর মালামাল উদ্ধার এবং নিলামে গৃহীত অর্থ সরকারি কোষাগাওে জমাদান বিষয়ে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি। কিন্তু প্রধান শিক্ষক ফেরদৌসি বেগমের প্রতিবেদনের আলোকে চুরি হওয়া উক্ত মালামাল উদ্ধারে জরুরী ভিত্তিতে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। অপরদিকে অন্য এক প্রজ্ঞাপনে উক্ত বিদ্যালয়ের ২০১৮-১৯ অর্থবছরের উন্নয়নমূলক কাজ করার জন্য বিভিন্ন খাতে বরাদ্ধকৃত অর্থ যথাযথভাবে খরচ করা হয়নি মর্মে অভিযোগের সরেজমিনে ১০ কর্মদিবসে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দিয়ে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারকে।
উল্লেখ্য, লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার ২১নং টুমচর ইউনিয়নের পূর্ব টুমচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নাভানা কন্সট্রাকশন লি: এর এর ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের আওতায় ৩৪টি স্লাইকোন সেন্টার কাম বিদ্যালয় কাজের অংশ হিসেবে নতুন ভবনের নির্মাণ কাজ শুরু হয়। উক্ত নির্মাণ কাজ এর জন্য ওই বিদ্যালয়ের পুরাতন ৭ কক্ষ বিশিষ্ট ভবন ভেঙ্গে ফেলা হয়। এসময় ভেঙ্গে ফেলা ভবনের ১৩,১৫৩টি ইট, ৮২০০ আরএফটি এমএস বার, কাঠের দরজার চৌকাট ৪টি, কাঠের দরজার পাল্লা ১০টি, স্টিল জানালার গ্রীল ২৩টি, গ্রীলের ফ্রেম ৮৭টি, লোহাজনিত মালামাল ৯১৪ সিএফটিসহ অন্যান্য মালামাল সিজার লিস্ট করে নিলাম আহবান করে উপজেলা শিক্ষা অফিস। সর্বোচ্চ দরে হাকিয়ে নিলাম পায় সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান হাফিজ উল্যা। এ নিলামের জামানতও জমা দেন তিনি। কিন্তু এ নিলামের পরে ২০১৯ সালের ১৪ জানুয়ারী উক্ত নিলামকৃত মালামালগুলি চুরি হয়েছে বলে উপজেলা শিক্ষা অফিসার বরাবরে একটি অভিযোগ দায়ের করেন প্রধান শিক্ষক ফেরদৌসি বেগম। এ অভিযোগপত্রে একই স্কুলের সহকারি শিক্ষক কামরুদ্দিনকে অভিযুক্ত করেন। পত্রে তিনি উল্লেখ করেন, ১২জানুয়ারী ২০১৯ বৃহস্পতিবার বিদ্যালয় ছুটির পর ১৪ জানুয়ারী ২০১৯ সকালে বিদ্যালয়ে এসে তিনি মালামালগুলি দেখতে পায়নি। এ অভিযোগের ভিত্তিতে উপজেলা শিক্ষা অফিসার মনিরুজ্জামান মোল্লা অভিযুক্ত সহকারি শিক্ষক কামরুদ্দিনকে সাময়িক বরখাস্ত করেন। পরবর্তীতে অদৃশ্য কারণে একই বছরের ১৪ মে কামরুদ্দিনকে চাকুরিচ্যুত না করে অভিযোগ থেকে অব্যহতি দেওয়া হয়। এরপরে কাগজে-কলমে চুরি হওয়া মালামালের বিষয়ে স্কুলের প্রধান শিক্ষক ও শিক্ষা অফিসের তৎপরতা স্থগিত হয়ে গেছে। পরবর্তীতে স্কুলের বিভিন্ন অনিয়ম ও দূর্নীতি নিয়ে দৈনিক লক্ষ্মীপুর আলো পত্রিকায় সিরিজ নিউজ প্রকাশিত হয়। এর পর জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস এ ব্যবস্থা গ্রহণ করেন।