শনিবার, ২৮ মে ২০২২, ০৭:৪৪ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম:
সাউথ এশিয়া গোল্ডেন পিস এ্যাওয়ার্ড-২০২১ পেলেন শাম্মী তুলতুল লক্ষ্মীপুর সরকারি কলেজে শেখ রাসেল দেয়ালিকা উদ্বোধন লক্ষ্মীপুরে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কম্পিউটার ও ক্রীড়া সামগ্রী বিতরণ লক্ষ্মীপুর পৌরসভার সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থী আব্দুল মতলব’র ব্যাপক গণসংযোগ রায়পুরে বেদে ও অনগ্রসর জনগোষ্ঠীর শিক্ষার্থীদের মাঝে ১৫ লাখ টাকার চেক বিতরণ রায়পুরে নবনির্মিত শহীদ মিনার উদ্বোধন করলেন নুরউদ্দিন চৌধুরী নয়ন এমপি রায়পুর উপজেলা ডিজিটাল সেন্টার উদ্বোধন করেন এড. নয়ন এমপি রায়পুরে করোনা আক্রান্তদের মাঝে অক্সিজেন সিলিন্ডার বিতরণ উদ্বোধন শোক দিবসে লক্ষ্মীপুরে আওয়ামী লীগের আলোচনা সভা ও দোয়া লক্ষ্মীপুরে বিভিন্ন ইউনিয়নে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি উপহার দিলেন নুরউদ্দিন চৌধুরী নয়ন এমপি

লক্ষ্মীপুরের তৈরি টুপি মধ্যপ্রাচ্যের বাজারে

অনলাইন সম্পাদনা / ৮০০ পড়া হয়েছে:
প্রকাশের সময়: শনিবার, ২৮ মে ২০২২, ০৭:৪৪ পূর্বাহ্ন

স্টাফ রিপোর্টার ॥

নদী ভাঙ্গন কবলিত এলাকা লক্ষ্মীপুরের রামগতি উপজেলা। নদীর পাড়ে সেনাবাহিনী নির্মিত নদী রক্ষা বাঁধ। রয়েছে নারিকেল, সুপারি, বাঁশ, আরও শত রকমের গাছ-পালা। এ অঞ্চলের মানুষ বেশিরভাগই জেলে এবং কৃষক। তবে সরকারি চাকুরীজীবিও রয়েছে। এখানে গ্রামের নারীদের হাতে তৈরি নকশী টুপি যাচ্ছে ওমান, কুয়েত, সৌদিআরব সহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে। এসব দেশের শপিং মলে পাওয়া যাচ্ছে লক্ষ্মীপুরের তৈরিকৃত টুপি। সংসারের কাজের অবসর সময়ে নারীরা টুপি তৈরির কাজ করেন। এতে গ্রামীন নারীর কর্মসংস্থান ও পরিবারের বাড়তি আয়ের সুযোগ সৃষ্টি হচ্ছে।

জানা যায়, নকশি দিয়ে তৈরী বিদেশে রপ্তানী করা এসব টুপি তৈরীতে বিভিন্ন ধাপ রয়েছে। প্রথমে টুপির ডিজাইন তৈরী, এরপর সম্পূর্ণ বাংলাদেশী তৈরী কাপড়, কাটিং, আয়রনিং, নকশি ছাপ বসানো, নকশি ছাপের উপর মেশিনের সেলাই, হাসুয়া বা সুতা লুকানো, মহিলাদের হতে নকশি বুনন, পুনঃকাটিং, ধোলাই, পুনঃআয়রনিং ও টপ লাগানো। এর মধ্যে এ অঞ্চলের নারীরা শুধু নকশি বুননটা করে থাকেন।

কারিগররা জানায়, সাদা কাপড়কে কাটিং করে টুপি তৈরীর উপযুক্ত করা হয়। কাটিং কারিগর প্রতি টুপিতে ১০ টাকা পরিশ্রমিক পায়। এর মধ্যে নকশি করতে হয়। এরপর মেশিনে সেলাই করে নানা ডিজাইন বা নকশার উপর মেশিনে সেলাই করা হয়। প্রতিটি টুপি সেলাইয়ের জন্য শ্রমিকরা ৪০ টাকা পায়। হাসুর কাজের জন্য দেয়া হয় ২০ টাকা। গ্রামীন মহিলারা নকশার উপর সুঁই সুতার পরশ লাগিয়ে ৫শ টাকা থেকে ৬শ টাকার পারিশ্রমিক পায়। তবে টুপিতে নমুনা অনুযায়ী নকশির কাজ করলে একটি টুপিতে সাড়ে ৫শ টাকা থেকে ৬শ টাকা ও ৮০% হলে ৪শ টাকা, ৬০% হলে ৩শ টাকা এবং এর চেয়ে নি¤œমানের হলে টুপি গ্রহন করা হয়না এবং ঐ মহিলা পারিশ্রমিক পায়না। আর নকশি করার সুই সুতা মালিক সরবরাহ করে। মহিলাদের অভিযোগ পরিশ্রম অনুযায়ী নকশির কাজ করে যে টাকা প্রদান করা হয় তা অতি নগন্য।

রামগতি উপজেলার শিক্ষাগ্রামের (মনির মিয়ার বাড়ী) রিক্সা চালক মো: দিদারের স্ত্রী ফারভিন আক্তার জানায়, ঠিকভাবে কাজ করলে একটি টুপিতে নকশি করতে ১৫-২০ দিন সময় লাগে। নকশীর কাজ করে স্বামীর আয়ের সাথে কিছু টাকা যোগ করে ২ মেয়েকে নিয়ে তাদের ভালোই দিন কাটছে। প্রতিটি টুপিতে ৫শ থেকে ৬শ টাকা পারিশ্রমিক পান তারা।

একই এলাকার হাছিনা আক্তার জানায়, তার স্বামী মাইন উদ্দিন একজন ইটভাটা শ্রমিক। স্বামীর আয়ে তাদের পরিবার মোটামুটি চলে। কিন্তু অবসর সময় বসে থাকার চাইতে তিনি নকশীর কাজ করে আনন্দ পান। তাতে স্বামীর আয়ের সাথে বাড়তি আয় যোগ করে ভালোভাবে সংসার চালাতে পারেন।

Print Friendly, PDF & Email