মঙ্গলবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:৪৬ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম:
লক্ষ্মীপুর পৌরসভার সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থী আব্দুল মতলব’র ব্যাপক গণসংযোগ রায়পুরে বেদে ও অনগ্রসর জনগোষ্ঠীর শিক্ষার্থীদের মাঝে ১৫ লাখ টাকার চেক বিতরণ রায়পুরে নবনির্মিত শহীদ মিনার উদ্বোধন করলেন নুরউদ্দিন চৌধুরী নয়ন এমপি রায়পুর উপজেলা ডিজিটাল সেন্টার উদ্বোধন করেন এড. নয়ন এমপি রায়পুরে করোনা আক্রান্তদের মাঝে অক্সিজেন সিলিন্ডার বিতরণ উদ্বোধন শোক দিবসে লক্ষ্মীপুরে আওয়ামী লীগের আলোচনা সভা ও দোয়া লক্ষ্মীপুরে বিভিন্ন ইউনিয়নে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি উপহার দিলেন নুরউদ্দিন চৌধুরী নয়ন এমপি রায়পুর হাসপাতালে করোনা রোগীদের জন্য অক্সিজেন সিলিন্ডার হস্তান্তর রায়পুরে ক্ষতিগ্রস্থ উদ্যোক্তাদের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর প্রনোদনার চেক বিতরণ রায়পুর হাসপাতালে অক্সিজেন সিলিন্ডার ও অক্সিমিটার বিতরণ করলেন এমপি নয়ন

চররমনী মোহনে মহিষ চুরির অভিযোগে আটক-৩

অনলাইন সম্পাদনা / ৩৮৬ পড়া হয়েছে:
প্রকাশের সময়: মঙ্গলবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:৪৬ পূর্বাহ্ন

সংবাদদাতা ॥ লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার ২১নং চররমনী মোহন ইউনিয়নে মহিষ চুরির অভিযোগে তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ। সোমবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) দিবাগত রাতে তাদের আটক করা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাদের থানা হেফাজতে রাখা হয়েছে। আটককৃতরা হলেন, সদর উপজেলার ২০নং চর রমণী মোহন ইউপি চেয়ারম্যান আবু ইউসুফ ছৈয়ালের রাখাল জাহাঙ্গীর হোসেন, একই ইউনিয়নের ইমন হোসেন ও তার ছেলে আমির হোসেন। এর আগে মনির হোসেন নামে এক খামারীর ১০টি মহিষ চুরির ঘটনায় গত সোমবার সদর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়। অভিযোগে আটককৃত তিন ব্যক্তি সহ ৭ জনের নাম উল্লেখ করা হয়। পুলিশ ও অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত কয়েকদিন পূর্বে উপজেলার মজু চৌধুরীর হাট এলাকার মেঘনা তীরবর্তী চরের মনির হোসেনের খামার থেকে ১০টি মহিষ চুরি হয়। যার আনুমানিক মূল্য ১৩ লাখ টাকা। পরে বিভিন্ন স্থানে খুঁজেও মহিষের সন্ধান পাওয়া যায়নি। একপর্যায়ে ওই খামারী জানতে পারেন জাহাঙ্গীর, ইমন ও আমির হোসেন সহ অন্যরা মহিষগুলো চুরি করে। পরে বাহার ও আজাদ কসাইয়ের কাছে বিক্রি করেন। এনিয়ে মনির হোসেন একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

অন্য অভিযুক্তরা হলেন, চর রমনী মোহন গ্রামের জুয়েল হোসেন, আনোয়ার হোসেন, কমলনগর উপজেলার তোরাবগঞ্জ এলাকার বাহার হোসেন ও মতির হাট এলাকার আজাদ হোসেন। ২৫ ফেব্রুয়ারি বুধবার মনির হোসেন গণমাধ্যম কর্মীদের কাছে অভিযোগ করে বলেন, জাহাঙ্গীর, ইমন ও আমির সহ অন্যরা তার মহিষগুলো চুরি করে। এ ঘটনায় থানায় অভিযোগ দায়ের করলে পুলিশ তিনজনকে আটক করে। তবে অভিযুক্তদের স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আবু ইউসুফ ছৈয়ালের রাখাল ও  অনুসারি বলে দাবি করেন তিনি। তিনি আরও বলেন, এ অঞ্চলের গরু, মহিষ সহ বিভিন্ন চুরি ঘটনা চেয়ারম্যানের অনুসারিরা করে থাকেন। এজন্য স্থানীয়রা চোরকে আটক করলেও কখনো সঠিক বিচার হয়নি। উল্টো হয়রানির শিকার হতে হয়েছে ভুক্তভোগীদের। আটককৃত ইমনের স্ত্রী রেহানা বেগম বলেন, কিছুদিন পূর্বে তাদেরও ১৩ টি মহিষ চুরি হয়েছিলো। ঘটনাটি ঘটিয়েছেন মনির হোসেন। এ ঘটনায় যখন মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছেন তখন মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে তার স্বামী ও ছেলেকে পুলিশে দিয়েছেন। জানতে চাইলে ইউপি চেয়ারম্যান আবু ইউছুফ ছৈয়ালের মুঠোফোনে চেষ্টা করেও পাওয়া যায়নি। এ বিষয়ে সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ কে এম আজিজুর রহমান মিয়া বলেন, অভিযোগের ভিত্তিতে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তিনজনকে আটক করা হয়েছে। প্রমাণ মিললে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।